Advance KnowledgeTech Desk

ইন্টারনেটে নিরাপদ থাকার উপায় 2021- how to safe on internet

ইন্টারনেটে নিরাপদ থাকার উপায়ঃ

ইন্টারনেটে নিজেকে ব্যাতীত নিজের ছায়াকেও বিশ্বাস করতে নেই। হ্যাকার থেকে নিরাপদ থাকার কিছু জরুরি উপায় নিচে উল্লেখ করা হলো-
১। আপনার একাউন্টের পাসওয়ার্ড কমপক্ষে ৩৩ সংখ্যার হতে হবে। আর, তাতে অবশ্যই বড় হাতের A-Z, ছোট হাতের a-z এবং কিছু স্পেশাল ক্যারেকটার যেমনঃ #%*&%@ ইত্যাদি থাকতে হবে।
২। পাসওয়ার্ডে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য যেমনঃ নাম, মোবাইল নম্বর, জন্মতারিখ ইত্যাদি ব্যাবহার করা থেকে বিরত থাকুন।
৩। পাসওয়ার্ডে ইংরেজি শব্দ সরাসরি লেখা যাবে না। কারন, এমন কিছু সফটওয়্যার আছে, যা আপনার পাসওয়ার্ডের মধ্যে কি কি ইংরেজি শব্দ আছে তা অনুমান করে বের করতে সক্ষম। তাই, পাসওয়ার্ডে যদি ইংরেজি শব্দ লিখতেই হয় তাহলে, কিছুটা পরিবর্তন করে লিখুন।
যেমনঃ আপনার পাসওয়ার্ডে যদি Bangladesh শব্দটি লিখতে চান তাহলে [email protected]@desh এভাবে লিখুন।
৪। আপনার সকল একাউন্টে login করার জন্য একটি আলাদা মোবাইল বা, কম্পিউটার ব্যাবহার করুন। সেই নির্দিষ্ট মোবাইল বা, কম্পিউটারটি শুধুমাত্র আপনার একাউন্টে login করার জন্যই ব্যাবহার করবেন। এছাড়া, ইন্টারনেটে অন্য কোন কাজই করবেন না। এটা কিন্তু খুব কঠিন কিছু না। সাধারনত, আমাদের ঘরে একাধিক মোবাইল থাকেই।
সেইসাথে, এই নির্দিষ্ট মোবাইল বা, কম্পিউটারটি ছাড়া অন্য কোন ডিভাইস দিয়ে login করবেন না। এতে আপনি অনেক নিরাপদ থাকবেন। যেমনঃ খারাপ হ্যাকারদের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করলে তারা আপনার মোবাইল বা, কম্পিউটারে root kit নামক ক্ষতিকর প্রোগ্রাম install করিয়ে দিবে; এমনকি আপনি দেখতেও পারবেন না! এই root kit আপনার একাউন্টের password থেকে শুরু করে অসংখ্য তথ্য সেই হ্যাকারের কাছে পাঠিয়ে দিবে। কিন্তু, আপনি যেই মোবাইলে ফেসবুক ব্যাবহার করবেন সেই মোবাইল দিয়ে যদি ইন্টারনেটে অন্য কিছু না করেন তখন, এই ধরনের হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা একদম থাকবে না।
৫। প্রতি মাসে একবার করে পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করুন। আর, একটি পাসওয়ার্ড শুধুমাত্র একটি একাউন্টের জন্যেই ব্যাবহার করুন। নাহলে, আপনার একটি একাউন্টের পাসওয়ার্ড হ্যাক হয়ে গেলে সেই পাসওয়ার্ড দিয়ে অন্যান্য একাউন্টও হ্যাক করা সম্ভব হবে।
৬। শুধু পরিবার ও আত্মীয়দের সাথে যোগাযোগের জন্য একটি পার্সোনাল মোবাইল নম্বর ব্যাবহার করুন। ব্যাংক একাউন্টের জন্যেও এই নম্বরটি ব্যাবহার করুন। এছাড়া এই নম্বর অন্য আর কাউকে জানাবেন না। ফলে, ব্যাংক শুধুমাত্র আপনার পার্সোনাল মোবাইল নম্বরটি জানবে। অন্য নম্বরে যদি কোন ধোঁকাবাজ call দিয়ে বলে, “আমি ব্যাংক থেকে call করেছি। আপনার থেকে কিছু তথ্য যাচাই করতে হবে।“ তখন, আপনি সহজেই বুঝবেন- এটি একটি ধোঁকাবাজি। কারন, ব্যাংক তো আপনার পার্সোনাল মোবাইল নম্বরটি ছাড়া অন্য কোন নম্বর জানেই না!
৭। কিছু ওয়েবসাইটের লিংকে ক্লিক করলে আপনার একাউন্ট হ্যাক হয়ে যেতে পারে। তাই, যেকোন লিংকে ক্লিক করার আগে সতর্ক হোন।
৮। আবারও বলছি- আপনার সকল একাউন্টে login করার জন্য কেবলমাত্র একটি আলাদা মোবাইল বা, কম্পিউটার ব্যাবহার করুন। আর, সেই মোবাইল বা, কম্পিউটারে ইন্টারনেটের অন্য কোন কাজ করবেন না। কেননা, domain fronting নামক পদ্ধতিতে হ্যাকার আপনার একাউন্টের তথ্য হ্যাক করতে পারে।
এর পদ্ধতি হলো-
আপনি একটি ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে যাবেন আর, হ্যাকার সেই ওয়েবসাইটের পরিবর্তে আপনাকে অন্য কোন অনিরাপদ ওয়েবসাইটে নিয়ে যাবে। তখন হ্যাক হয়ে যাবেন। ইন্টারনেটে হাজার হাজার উপায়ে আপনি হ্যাক হয়ে যেতে পারেন। তাই, মূলত এমন কোন পদ্ধতি নেই, যা settings করে আপনি ১০০% নিরাপদ হয়ে যাবেন। এই কারনেই আপনাকে আলাদা একটি মোবাইল বা, কম্পিউটার ব্যাবহার করতে বলছি বারবার।
সবাই নিরাপদে থাকুন। ইন্টারনেট ও প্রযুক্তি বিষয়ক যেকোন প্রয়োজনে জানতে comment করুন।

Related Articles

One Comment

Leave a Reply